রাজ্য

করোণা পরিস্থিতির আবহ কালে কেন্দ্রের বিজেপি সরকার দ্বিচারিতা করছে এবং সম্পূর্ণ ব্যর্থ অভিযোগ সমাজবাদী পার্টির যুব নেতা সুভাষ গোলদারের


শ্যামল রায়, কলকাতা:করোণা পরিস্থিতিকে কেন্দ্র করে কেন্দ্রের বিজেপি সরকার দ্বিচারিতা মনোভাব নিয়ে দেশ শাসন করছে। আঞ্চলিক দলগুলোর প্রতি গুরুত্ব না দিয়ে তাদেরকে অবহেলাকরছে।সেই সাথে ছোট দলগুলো কে বঞ্চিত রেখে একনায়কতন্ত্র ভাবে চৌকিদার সুলভ কথাবার্তা বলে ভারত বর্ষ লুট করছে।  তাই অভিযোগের আঙুল তুললেন সমাজবাদী পার্টির সারা ভারতের   যুব সম্পাদক সুভাষ গোলদার।
বুধবার তিনি কেন্দ্রের বিজেপি সরকারকে তুলোধোনা করেন। তিনি বলেন এই করোনার পরিস্থিতিতে ভারত বর্ষ  জুড়ে সাংবাদিকরা পুলিশ এবং সর্বোপরি বহু সাধারণ মানুষ যারা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সামাজিক দায়বদ্ধতায় কাজ করে যাচ্ছেন অথচ তাদের কথা বিজেপি সরকার মনে করছে না। আমরা দাবি তুলেছি এই করোনার পরিস্থিতিতে জিএসটি ছাড় দিতে হবে এবং বিনামূল্যে মাস্ক বিতরণ করতে হবে। অথচ বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজে উদ্যোগ গ্রহণ করে করোনাভাইরাস মোকাবেলা করে যাচ্ছেন। সবার সাথে কথা বলে সবাইকে গুরুত্ব দিয়ে কাজ করছেন এবং উন্নয়নের অন্যতম একজন কান্ডারি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আমরা কেন্দ্রের বিজেপি সরকারের কাছে দাবি করেছি যারা পরিযায়ী শ্রমিক আছেন তাদের একাউন্টে দশ হাজার কুড়ি হাজার টাকা দিতে হবে। এছাড়াও তিনি অভিযোগ করেছেন যে সমাজবাদী পার্টি বারবার কেন্দ্রীয় সরকারকে জানিয়েও কোনো কাজের কাজ হচ্ছেনা চীনের সাথে সমঝোতা করে ভারতবর্ষকে নষ্ট করার চক্রান্তে শামিল হয়েছে কেন্দ্রের বিজেপি সরকার অর্থাৎ যুদ্ধ যুদ্ধ ভাব দেখিয়ে কেন্দ্রের বিজেপি সরকার আগামী পাঁচ বছরের জন্য গদিতে থাকার একটা বড় কূটনৈতিক চক্রান্ত শুরু করে দিয়েছে অথচ ভারতবর্ষের খেটে খাওয়া সাধা
কূটনৈতিক চক্রান্ত শুরু করে দিয়েছে অথচ ভারতবর্ষের খেটে খাওয়া সাধারণ মানুষ তারা আগামী দিন কিভাবে বেঁচে থাকবে সেদিকে লক্ষ্য নেই নরেন্দ্র মোদির।অথচ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিরলসভাবে তিনি যেভাবে করোনাভাইরাস মোকাবিলা করে যাচ্ছেন আমরা সমাজবাদি  পার্টির  পক্ষ থেকে স্যালুট জানাই। তিনি করোনাভাইরাস সংক্রান্ত স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার কথা বারবার বলছেন সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চলা ফেরার কথা বলছে এবং সকলকে মাস্ক পড়ে  যাতায়াতের কথা বলছেন।্আমরা মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে সেই কথাটি বলতে চাইছি যে কেন্দ্রের বিজেপি সরকার যেভাবে ব্যাকফুটে চলে যাচ্ছে আমরা বারবার সরকারের দৃষ্টিভঙ্গিকে জনবিরোধী নীতি বলে আসছি। কিন্তু বাংলার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যেভাবে ভারতবর্ষকে তথা বাংলাকে নিয়ে ভাবছেন বিজেপি সরকার কিন্তু তার ধারে কাছে নেই। এছাড়াও সমাজবাদী পার্টি দাবি করছে আগামী উত্তরপ্রদেশের বিধানসভা নির্বাচনে ৪১০ টি আসনের মধ্যে ৩৫০ থেকে ৩৯০টি আসন পাবে যার মধ্যে কংগ্রেস থাকতে পারে তার মধ্যে মায়াবতী থাকতে পারে কিন্তু বিজেপি সরকারের পতন ঘটবে এবং বিজেপি সরকার আসন পাবে না। সমাজবাদী পার্টির সর্বভারতীয় যুব সাধারণ সম্পাদক সুভাষ আরও অভিযোগ করেছেন যে কেন্দ্রের বিজেপি সরকার যেভাবে ঝাড়খন্ড বিহার মধ্যপ্রদেশ সন্ত্রাস তৈরি করছে এর ফলে বহু সাংবাদিকদের কবলে পড়ে খুন হচ্ছেন এবং লাগাতার পুলিশের উপর আক্রমণ সাধারণ মানুষের উপরে জনবিরোধী নীতি আক্রমণ তাই সর্বস্বান্ত হয়ে পড়ছেন ভারতবর্ষের একাধিক সাধারণ গরিব নাগরিক। আমরা দাবি তুলেছি কেন্দ্রের বিজেপি সরকারকে ডিজেল পেট্রোলের দাম কমাতে হবে। পাশাপাশি রান্নার গ্যাসের দাম কমাতে হবে। করোনা ভাইরাস সংক্রমণের বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে হবে যাতে আমরা এই ভাইরাসের হাত থেকে রেহাই পেতে পারি। নাহলে সমাজবাদী পার্টি লাগাতার বৃহৎ আন্দোলন সংগঠিত করবে। অর্থাৎ বিজেপি সরকারের একটাই উদ্দেশ্য যেনতেন প্রকারে গদিতে টিকে থাকা। চীনের সাথে যুদ্ধ যুদ্ধ ভাব দেখিয়ে ভারতীয় নাগরিকের কাছে সাধু সেজে থাকা এটাই হচ্ছে বিজেপির সরকারের একটা কূটনৈতিক চাল। অথচ বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যেভাবে উন্নয়নমুখী কাজ করছে তাতে সাধারণ মানুষ ভীষণ খুশি এবং উন্নয়নকে হাতিয়ার করেই আগামী বছর বিধানসভা নির্বাচনে প্রচুর ভোটের ব্যবধানে পরাজিত করবে এবং সেখানে সাথী হয়ে থাকবে সমাজবাদী পার্টি। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কে স্যালুট জানাই সমাজবাদী পার্টির নেতারা। আমরা চাই শান্তি আমরা চাই উন্নয়ন আমরা চাই সুন্দর ভারত বর্ষ সুন্দর বাংলা।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button