জেলা

নন্দকুমারে রেশন দুর্নীতির অভিযোগ, বিজেপি- তৃণমূল চাপানউতোর তুঙ্গে

প্রদীপ কুমার মাইতি

বর্তমান গোটা বিশ্বে করোনা আতঙ্কে ঘরবন্দী সাধারণ মানুষের অন্য সুনিশ্চিত করতে ইতিমধ্যে সরকারের তরফ থেকে বিনামূল্যে রেশন দেওয়ার কথা ঘোষণা করা হয়েছে। আর এরপর থেকেই রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় রেশন দুর্নীতি নিয়ে ভুরি ভুরি অভিযোগ উঠতে শুরু করেছে। মঙ্গলবার সকালে পূর্ব মেদিনীপুর জেলার নন্দকুমারের খঞ্চিতে তৃণমূল পরিচালিত সমবায় সমিতির অধিন রেশন দোকানে একাধিক অভিযোগ নিয়ে রেশন দোকানের সামনে বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন স্থানীয় মানুষজনেরা। বেশ কিছুক্ষণ ধরে এদিন বিক্ষোভ দেখানোর পর ঘটনাস্থলে স্থানীয় নন্দকুমার থানার পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। 

নন্দকুমারের খঞ্চিতে তৃণমূল পরিচালিত এই সমবায় কৃষি উন্নয়ন সমিতির অধীনে একটি রেশন দোকান রয়েছে। যেখানে তৃণমূলের বিরুদ্ধে রেশন সামগ্রী আত্মসাতের অভিযোগ উঠছে। প্রায় শতাধিক গ্রাহকের অভিযোগ, সরকার থেকে কুপন পাওয়ার পরও তাদের সঠিক পরিমাণে রেশন দ্রব্য দেওয়া হচ্ছে না। সেই সমস্ত রেশন তৃণমূল পরিচালিত বোর্ড আত্মস্যাৎ করছে। এমনকি সাধারণ মানুষকে নির্দিষ্ট পরিমাণের কম পরিমাণ রেশন দেওয়া হচ্ছিল। আর এই সমস্ত অভিযোগে মঙ্গলবার সকাল থেকে প্রায় কয়েকশো গ্রাহক রেশন দোকানের সামনে জমায়েত হয়ে বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন। বিক্ষোভের খবর স্থানীয় নন্দকুমার থানায় পৌঁছতে বিশাল পুলিশবাহিনী ঘটনাস্থলে গিয়ে পৌঁছায়। এরপর পুলিশ সাধারণ মানুষকে আশ্বস্ত করে  পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। সমগ্র ঘটনাটির পেছনে ওই সমবায় সমিতির ডাইরেক্টর তথা নন্দকুমার ব্লকের খাদ্য কর্মাধ্যক্ষ অনুপ কুমার বেরার বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলছেন স্থানীয় বিজেপি নেতৃত্ব। তবে এই সমস্ত অভিযোগ উড়িয়ে দিয়ে তৃণমূলের দাবি এদিনের বিক্ষোভ বিজেপি চক্রান্ত করে লোক এনে এভাবে গন্ডগোল সৃষ্টি করার চেষ্টা করেছে। সমবায় সমিতির ডাইরেক্টর তথা নন্দকুমার ব্লকের খাদ্য কর্মাধ্যক্ষ অনুপ কুমার বেরা বলেন, “খুবই ভালোভাবে রেশন দেওয়ার কাজ চলছিল। বিজেপি চক্রান্ত করে গন্ডগোল সৃষ্টি করার জন্য এভাবে এসে বিক্ষোভ দেখিয়ে অশান্তির সৃষ্টি করেছে। রেশন দ্রব্য আত্মসাতের অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা”। তবে সম্পূর্ণ অভিযোগ তৃণমূলের দিকেই চাপিয়ে তমলুক সাংগঠনিক জেলা বিজেপির সভাপতি নবারুণ নায়েক বলেন, “সাধারণ মানুষ খেতে পাচ্ছেনা। আর এমন সময় তৃণমূল রেশন ডাকাতি করছে। এই ঘটনায় অবিলম্বে ওই সমবায়ের ডাইরেক্টর তথা ব্লকের খাদ‍্য কর্মাধ্যক্ষকে গ্রেপ্তারের দাবি জানাচ্ছি”।  এদিনের এই ঘটনায় নন্দকুমার থানার ওসি গোপাল পাঠক বলেন, “আমরা গন্ডগোলের খবর পেয়ে সঙ্গে সঙ্গে ঘটনাস্থলে যাই এবং পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করি”।

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button